March 27, 2009

Global Warming or Global Cooling

আমরা মনে করছি এখন পর্যন্ত পৃথিবীতে শুধু গ্লোবাল ওয়ার্মিং বা বৈশ্বিক উষ্ণয়ন ঘটছে। কিন্তু আমরা যদি লক্ষ করে দেখি, তাহলে দেখতে পারবো যে সর্বমোট পৃথিবীতে গ্লোবাল কুলিং বা পৃথিবীটা বেশ ঠান্ডাই হচ্ছে। ২০০০ সাল পর্যন্ত এই ঘটনার মুখ দেখা যেত এই পৃথিবীতে, কিন্তু এখন আস্তে আস্তে মানুষ বিশ্বাস করে গ্লোবাল ওয়ার্মিং-ই হচ্ছে।

আমরা এই ছবিটি দেখে বুঝতে পারি যে এটা শুধু আনুমানিকই বোঝা যায় না। এখানের ছবিটাতে দেখলে বোঝা যায় যে ১৯৮০ সাল থেকে আর্কটিকের বরফের সংখ্যা বরংচ বেড়েই চলেছে। তাহলে এখনের প্রশ্ন হবে, অনেক অনেক গ্ল্যেশিয়ার মেল্ট হচ্ছে। সেটা কোথায় যাচ্ছে? সেটার কিছুই দেখা যায় না কেন এই ছবিতে?

হ্যা, নিশ্চই সেটা মেল্ট হচ্ছে, কিন্তু এই মানচিত্র দেখলে বোঝা যাবে কি হচ্ছে পৃথিবীর কোন কোন জায়গায়।

পৃথিবীর ওজন লেয়ারের ধংস বেশিটাই হয়েছে দক্ষিণ মেরুতে। তাই সেই স্থানের বরফের সংখ্যা বাড়েনি এবং মানচিত্র দেখলে বোঝা যাবে যে সেখানের রং নীল নয় কারন সেখানের গরমটাই বেড়েছে ওজন লেয়ার ধংস হবার পরে।
কিন্তু আমরা যদি উত্তর মেরুর দিকে তাকাই, তাহলে দেখতে পারি যে উত্তর মেরু এবং চীনে কিছু পরিবর্তন হয়েছে। চীনে কিছু স্থানে ঠান্ডাটা বেড়ে গিয়েছে এবং সেটা অনেক অনেক ক্ষতি করছে সেই স্থানের বসবাসকারীদের। তারা এই প্রকার পরিবর্তন কখনই দেখেনি। এই মানচিত্রতে দেখা যায় কি কি পরিবর্তন হয়েছে ১৯৬৫ থেকে ১৯৭৫ সাল পর্যন্ত এবং ১৯৩৭ থেকে ১৯৪৬ সাল পর্যন্ত। কিছু কিছু স্থানের ধুলা এবং তাপমাত্রা এক সাথে বেড়ে চলেছে। এগুলো কিসের কারনে? এটা কি পৃথিবীর বায়ুমন্ডলে কারবন্ডাই অক্সাইডের কারনে হচ্ছে?
বিজ্ঞানিরা বিশ্বাস করে এখানে গ্লোবাল ওয়ার্মিং বা গ্লোবাল কুলিং-ই হোক, এখানে যে কিছু একটা পরিবর্তন হচ্ছে, সেটা একেবারে ঠিক কথা এবং এটা আমাদের কি করবে সেটা আমরা নিজেরাই পরে দেখতে পারবো।

No comments:

Post a Comment